দরিদ্র পরিবারের ভেড়া চরানো একসময়ের সেই মেয়েটি আজ ফ্রান্সের শিক্ষা মন্ত্রী।

This image about "Najat Belkacem"

তীব্র ইচ্ছাশক্তি, অক্লান্ত পরিশ্রম আর নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস যে মানুষকে অবিশ্বাস্য জয়ের মাধ্যমে তার লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে পারে সেটার জ্বলন্ত প্রমাণ হয়ে দাঁড়িয়েছেন “নেজাত বেল্কাসেম”।  নিজের প্রতিষ্ঠিত হওয়ার মাধ্যমে তিনি সারা বিশ্বকে দেখিয়ে দিলেন যে আত্মবিশ্বাস থাকলে যে কোন জায়গা থেকেই নিজের লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব। মরক্কোর এক প্রত্যন্ত গ্রামে জন্ম নেওয়া সেই “নেজাত বেল্কাসেম”  তার শৈশব কেটেছে ভেড়া  ভেড়া চড়িয়ে, আর ভেড়া চড়ানো সেই মেয়েটিই    কি না আজ ফ্রান্সের শিক্ষামন্ত্রী।


নেজাত বেল্কাসেম (Najat Belkacem) সম্পর্কে

মরক্কোর বনি চিকারের গ্রামে সাত সন্তানের একটি দরিদ্র মুসলিম পরিবারে 1977 সালের 4 অক্টোবরে জন্ম গ্রহণ করেন তিনি। নেজাত বেল্কাসেম ছিলেন পরিবারের দ্বিতীয় সন্তান।  তার দাদী যথাক্রমে স্প্যানিশ এবং আলজেরিয়ান ছিলেন,আমিয়েনের উপকূলে বড় হন  তিনি। এইনেজাত বেল্কাসেম এর  বাবা ছিলেন একজন নির্মাণ কর্মী, পরিবারের দরিদ্রতার কারণে লেখাপড়ার পাশাপাশি এক সময় ভেড়া চড়িয়েছেন আজকের এই শিক্ষামন্ত্রী। দরিদ্র পরিবারের জীবনের সাথে সংগ্রাম করে নিজের জীবন গড়ে তুলেছেন তিনি। 2002 সালে তিনি he Institut d’études politiques de Paris থেকে স্নাতক হন।


2002 সালে তিনি “সোশালিস্ট পার্টিতে” যোগ দেন এবং 2003 সালে লিয়ন মে মেয়র জেরার্ড কলম্বের দল, স্থানীয় গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার, বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই, নাগরিক অধিকারের প্রচার এবং কর্মসংস্থান ও বাসস্থানের অ্যাক্সেসের জন্য নেতৃস্থানীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।
2004 সালে রোন-আলপিসের আঞ্চলিক কাউন্সিলের কাছে নির্বাচিত হন, তিনি সংস্কৃতি কমিশনের সভাপতিত্ব করেন, 2004 সালে পদত্যাগ করেন। 2005 সালে তিনি সমাজতান্ত্রিক পার্টির উপদেষ্টা হয়েছিলেন। 2005 এবং 2006 সালে তিনি স্টেফেন কেরলের পাশাপাশি টেলে লিয়ন পৌরসভাে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সি’স্ট টাউট ভু’র কলাম লেখক ছিলেন।
ফেব্রুয়ারী 2007 এ তিনি ভিনসেন্ট পিলন এবং আনারড মন্টেবর্গের পাশাপাশি একজন মুখপাত্র হিসেবে সিগোলেন রয়্যালের প্রচারণা দলের সাথে যোগ দেন।
2008 সালের মার্চ মাসে তিনি লিয়ন-XIII ক্যান্টন-এর সমাজতান্ত্রিক পার্টির ব্যানারের অধীনে দ্বিতীয় রাউন্ডে ভোটের 58.52% ভোটে ক্যান্টনাল নির্বাচনে রোন বিভাগের সেরিলিল জেনারেল নির্বাচিত হন।
16 মে, ২01২ তারিখে, তিনি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কো হোল্যান্ডের মন্ত্রিসভায় নিযুক্ত হন, নারী অধিকার ও সরকারের মুখপাত্র হিসাবে। 2015 সালে তাকে ফ্রান্সের শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়। আর ফ্রান্সের ইতিহাসে নেজাত বেল্কাসেম (Najat Belkacem) হলেন প্রথম নারী শিক্ষামন্ত্রী।



উপদেশ মূলক কিছু কথা

একজন মানুষ কিভাবে মাটির পদদেশ দেশ থেকে পাহাড়ের চূড়ায় উঠতে পারে তার দৃষ্টান্ত নেজাত বেল্কাসেম। আমরা সব সময়ভাবি সাফল্য অনেক দূর, আমরা ভাবি আমাদের পক্ষে সব কিছু করা সম্ভব না, আমরা নিজের উপর বিশ্বাস করতে পারি না। আমাদের এসব ভয় ভীতির কারণে আমাদের মধ্যে থাকা জ্ঞান এবং মেধাকে আমরা কাজে লাগাতে পারি না। যত কঠিন কাজে হোক না কেন! যদি নিজের উপর আত্মবিশ্বাস রেখে সেই কাজটি করা যায় তাহলে বিজয় হওয়া অবশ্যই সম্ভব।


শুধু তাই নয়, আমরা আমাদের  চারপাশে  লক্ষ করলেই দেখতে পাবো যে পৃথিবীতে  যারাই আজকে বড় কিছু করেছেন তারাই অনেক ছোট ছোট জায়গা থেকে উঠে এসেছেন। যেমন আজকের ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও একসময় চা ওয়ালা ছিলেন,  একজন চা ওয়ালা যদি আজ ভারতের প্রধানমন্ত্রী হতে পারে তাহলে আপনি কেন পারবেন না? আমরা সবাই সেরা ক্রিকেটার Chris Gayle কে চিনি, আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি যে বিশ্ব মাতানো এই খেলোয়ার এক সময় জঞ্জাল সাফ করার কাজ করতো। জঞ্জাল সাফ করার কাজ করে কেউ যদি বিশ্বের অন্যতম ক্রিকেটার হতে পারে আপনি কেন পারবেন না?একজন ব্যক্তি (Abrahham Lincoln) দুবার বিজনেসের ফেল হওয়ার পরে ডিপ্রেশন এগিয়ে পরপর আটবার ইলেকশনে হেরে গিয়ে নয় বারের মাথায় যদি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হতে পারে তাহলে আপনি কেন পারবেন না?আপনি চাইলে সব কিছুই অর্জন করতে পারবেন (Nothing is impossible) যেটা আপনি চান যেটা স্বপ্ন আপনি দেখেন, শুধু প্রয়োজন আপনার ভিতরে থাকা আগুন টাকে জ্বালিয়ে দেওয়া। সবকিছুতে পিছিয়ে থাকার কারণ  আমাদের মাঝে ভয়। আজ আপনি আপনার অন্তরে থাকা ভয় কে দূর করে আত্মবিশ্বাস নিয়ে এগোতে থাকুন দেখবেন একদিন না একদিন আপনি আপনার সাফল্যে পৌঁছেছেন।



বিভিন্ন শিক্ষামূলক এবং অনলাইন আর্নিং সংক্রান্ত পোস্ট  নিয়মিত পেতে প্রতিদিন আমাদের সাইটে ভিজিট করুন।  আমাদের পোস্টগুলি ভালো লেগে থাকলে  আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ!  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *